দণ্ড চূড়ান্ত না হলে নির্বাচনে বাধা নেই খালেদা জিয়ার

0

স্কাই নিউজ প্রতিবেদক: দেশের সর্বোচ্চ আদালতে নিম্ন আদালতের দণ্ড যদি বহাল থাকে তবেই কেবল কাউকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণার বিধান রয়েছে। তাও দুই বছর পর্যন্ত দণ্ড থাকলে। এ রকম দণ্ড উচ্চ আদালতে বহাল রাখা হলে সাজা ভোগের পর ৫ বছরকাল কাউকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা যায়। অবশ্য দেশে এখন পর্যন্ত এমন নজির প্রতিষ্ঠিত হয়নি। অর্থাৎ বিচারিক আদালতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া দণ্ডিত হলেও তিনি যদি আপিল করেন তবে ওই আপিল সর্বোচ্চ আদালত অর্থাৎ সুপ্রিমকোর্টে নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বেগম জিয়া নির্বাচনে অযোগ্য হবেন না।

স্বাধীনতার পর এখন পর্যন্ত বিচারাধীন দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তির সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে কোন অযোগ্যতার বা পদে বহাল না থাকার নজির শুধু সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের ক্ষেত্রে রয়েছে। তবে অসংখ্য দণ্ডপ্রাপ্ত বিচারাধীন ব্যক্তি নির্বাচনে অংশগ্রহণ এবং সংসদ সদস্য পদেও বহাল ছিলেন বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে।

গতকাল বৃহস্পতিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়াকে বিচারিক আদালত ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে। বেগম জিয়ার আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তারা রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘আপিল করা এবং তা গৃহীত হলে কাউকে দণ্ডিত বলা যাবে না। যতক্ষণ না উচ্চ আদালত কর্তৃক তা স্বীকৃত হয়। সে কারণে আপিল দায়ের করেও নির্বাচনে অংশ নিতে খালেদা জিয়ার কোন বাধা নেই।’ তিনি বলেন, ‘রায়ের সত্যায়িত কপি পাওয়ার পরবর্তী ৬০ দিনের মধ্যে আপিল দায়ের করার বিধান রয়েছে।’

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফৌজদারি অপরাধের দণ্ড চূড়ান্ত না হওয়া পর্যন্ত আইনের দৃষ্টিতে কাউকে দোষী বলে গণ্য করা যায় না। আমাদের দেশে সাজা চূড়ান্তের একমাত্র মালিক সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। নিম্ন আদালত বা হাইকোর্টের সাজার উপর নির্ভর করে অতীতে কাউকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণার নজির নেই।  নিম্ন আদালত বা হাইকোর্টের দণ্ডের বিরুদ্ধে কারো আপিল গৃহীত না হওয়া পর্যন্ত ওই ব্যক্তির দণ্ডাদেশ বহাল থেকে যায়। কিন্তু আপিল গৃহীত হলে তাকে দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি বলা হয় না। তিনি গণ্য হন বিচারাধীন ব্যক্তি হিসেবে।

 

 

LEAVE A REPLY

seventeen + fourteen =