কীভাবে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট প্রতিরোধ করবেন জেনে নিন

0

সদ্যই কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের কারণে প্রয়াত হয়েছেন তামিলনাড়ু মুখ্যমন্ত্রী জয়রামন জয়ললিতা। অ্যাপোলো হাসপাতালে ৭৫ দিল মৃত্যুর সঙ্গে যুদ্ধ করে অবশেষে হার মেনে নেন ৬৭ বছর বয়সী এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। কী এই কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট? যার কারণে মৃত্যুর কাছে হার মানতে হয় আমাদের? কীভাবেই বা কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট প্রতিরোধ করা যায়? আপনি কিংবা আপনার প্রিয়জনকেও যাতে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট কারণে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে না হয়, তাই এগুলো জেনে রাখুন।

কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট তখনই হয়, যখন আমাদের হৃদপিন্ড সারা শরীরে রক্ত পাম্প করা বন্ধ করে দেয়। এটাকে তাই সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্টও বলা হয়। এর ফলে অনেক মানুষ বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্টের সমস্যা, মাথা ঘোরা প্রভৃতি সমস্যা অনুভব করেন।

কী কারণে হয় এই কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট?

অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের কারণে অনেক সময়ে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়। এছাড়াও, করোনারি আর্টারির রোগ, হার্ট অ্যাটাক, অতিরিক্ত শারীরিক ধকল, অক্সিজেনের অভাব, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ, অতিরিক্ত শারীরিক কসরত, এছাড়াও আরও অনেক কারণে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হতে পারে। উচ্চরক্তচাপ, অতিরিক্ত ওজন, ডায়াবিটিস, হাই ব্লাড কোলেস্টেরল, অতিরিক্ত মদ্যপান এবং নিয়মহীন জীবনযাপনের জন্যেও কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়।

কীভাবে প্রতিরোধ করা যায় এই কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট?

১) নিয়মিত চিকিত্‌সককে দিয়ে হৃদপিণ্ড পরীক্ষা করাতে হবে।

২) যদি আপনার পরিবারের অনেকেই কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের স্বীকার হয়ে থাকেন, তাহলে আরও বেশি খেয়াল রাখুন।

৩) স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করুন।

৪) সঠিক ডায়েট মেনে খাবার খান।

৫) নিয়মিত শরীর চর্চা করুন। তবে অতিরিক্ত নয়।

৬) ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

৭) ধূমপান করবেন না।

LEAVE A REPLY

twenty − nineteen =